Tiktok করোনা রোধে সাহায্যের হাত বাড়াল টিকটক

একটি খবর থেকে জানা গেছে, Tiktok নামক একটি জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং এ্যাপ করোনা মোকাবিলায় ভারতকে সাহায্য করতে চার লক্ষ হ্যাজমেট শ্যুট প্রদান করবে। যার মূল্য 100 কোটি টাকা।

এরই মধ্যে প্রথম ধাপে পাঠানো হয়েছে কুড়ি হাজার শ্যুট। পরে আরো দুটি ধাপে বাকি স্যুট গুলো পাঠানো হবে বলে টিকটক কোম্পানি থেকে জানানো হয়েছে।

আরো খবর পড়ুন কোন Blood Group করোনা ভাইরাস বেশী সংক্রামক হয় কি বলছেন বিজ্ঞানীরা জেনে নিন

এই হ্যাজমেট স্যুট বা PPE উন্নতমানের পোষাক যার পরিধান করে করোনা আক্রান্ত মানুষকে নির্ভয় চিকিৎসা করতে পারবেন চিকিৎসক নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা।

সংস্থার সূত্রের দাবী ভারতে মোট 25 কোটি Tiktok ব্যবহারকারী আছেন যারা নিয়মিত এই এ্যাপটি ব্যবহার করেন। Tiktok কোম্পানীর পক্ষ থেকেও নানা সর্তক বার্তা নিয়মিত প্রকাশ করা হয়েছে।

এই হ্যাজমেট স্যুটের ফলে অনেকটা নিরাপদ বোধ করবেন স্বাাস্থ্য কর্মীরা।

Tiktok কোম্পানীর পক্ষ থেকে বিশেষ সহযোগিতার জন্য বস্ত্রমন্ত্রী স্মৃতি ইরানিকে ধন্যনাদ জানানো হয়েছে।

ভারতে এই মূহূর্তে শেষ আপডেট করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ২০০০ আর মারা গিয়েছেন ৪১ জন্য

সকলে সর্তক থাকুন একমাত্র আমাদের সচেতনতা ও সর্তকতা করোনা মোকাবিলায় আমাদের প্রধান হাতিয়ার।

Financial Tips on Astrology অর্থলাভের চমৎকারী টোটকা

অন্যদিকে, এমত অবস্থায় গত কয়েকদিনে আরো কয়েকজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন চীনে। এই পরিস্থিতিতে চীনের শেনজেন শহরের প্রশাসন নিষিদ্ধ করলে কুকুর ও বিড়ালের মাংস। কিছু বিজ্ঞানীদের ধারণা পশুর দেহ থেকে করোনা ভাইরাস মানব দেহে সংক্রামিত হচ্ছে। উহান প্রদেশের বাজার থেকে ঐ রোগের সংক্রামন হয়েছে বলে অনেকে মনে করছেন। সেই বাজারে নানা জাতির পশুর মাংস বিক্রি হয় বাদ যায় না বাদুড়, সাপ সহ নানা প্রজাতির প্রাণী।

করোনাভাইরাস আসলে গবেষণাগারে বানানো রাসায়নিক মারণাস্ত্র এমন দাবি আগেই তুলেছিল আমেরিকা। সেই নিয়ে চিন-মার্কিন দ্বন্দ্ব এখনও চলছে। পাল্টা চিন হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছিল মার্কিন সেনেরাই ভাইরাস বয়ে এনেছিল উহানে। সেই সংক্রমণই ছড়িয়েছে বিশ্বজুড়ে। দোষারোপ-পাল্টা দোষারোপের মধ্যেই হঠাৎ করে চিন দাবি করে করোনার সংক্রমণ কমতে শুরু করেছে তাদের দেশে। হুবেইতে মহামারী থেমে গেছে। এমনকি এ খবরের সত্যতা প্রমাণ করতে হুবেই প্রদেশের লকডাউনও তুলে দেওয়া হয়। ডাক্তার-স্বাস্থ্যকর্মীরা বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন এমন ছবিও সামনে আনে চিনের স্থানীয় সংবাদমাধ্যম।

প্রতিটি দেশে চলছে করোনা প্রতিষেধক আবিষ্কারের চেষ্ঠা। যত দ্রুত এই প্রতিষেধক আবিষ্কার হবে তত তাড়াতাড়ি করোনা মোকাবিলায় আর একটি পদক্ষেপ নিতে পারবে বিশ্ব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
Translate »