Breaking News প্রথম করোনা ভাইরাসে মৃত্যু কলকাতায়

The corona-virus infected died today in Kolkata

আজকের সব থেকে বড় খবর ঃ করোনা ভাইরাসে এই প্রথম কলকাতায় মারা গেলেন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত একজন ভারতীয়।

আরো খবর পড়ুন Coronavirus এ আক্রান্তের সংখ্যা আরো বাড়ল

সূত্রের খবর আজ 23.03.2020 তারিখে বিকেল 3.35 নাগাদ কলকাতায় প্রথম করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু হয়।

তিনি দমদমের বাসিন্দা তারা বয়েস 55 বছর।

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয় কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে তিনি ভর্তি ছিলেন। আজ সেই ভয়াবহ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয় তিনি মারা গেলেন।

গতকাল সারাদেশ জুড়ে সকাল 7 থেকে রাত 9 টা পর্যন্ত সকলে নিজেদের ঘরবন্দী করে রেখেছিলেন। আজ বিকেল থেকে আগামী 27.03.2020 পর্যন্ত চলবে দেশ জুড়ে লক ডাউন। এবং আজ বিকেলে নবান্নে সর্বদলীয় বৈঠকে এই ভাইরাসের মোকাবিলায় বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

The corona-virus infected died today in Kolkata

ঠিক এই সময় কলকাতায় করোনা ভাইরাসে প্রথম কলকাতায় মারা গেল 55 বছরে পৌঢ়।

জ্বর নিয়ে তিনি বেশ কিছুদিন আগে ভর্তি হন কলকাতার এই বেসরকারি হাসপাতালে সেখান থেকে রক্তের নমুনা পরীক্ষা করার জন্য বেলেঘাটা আই ডি হাসপাতালে পাঠানো হলে ধরে পরে করোনা ভাইরাস।

তারপর তাকে ভেন্টিলেসনে রাখা হয় এবং চিকিৎসা করা হয়। কিন্তু আজ বিকেলে তার মৃত্যু হল।

সকলে সর্তঙ্ক থাকুন। আসুন সকলে সব সর্তকতা মূলক পদক্ষেপ নিয়ে মোকাবিলা করি এই করোনা ভাইরাসের।

আমাদের সর্তকতা আমাদের আতঙ্ক হওয়ার থেকে সব থেকে জরুরি।

Financial Tips on Astrology অর্থলাভের চমৎকারী টোটকা

আর এক দিকে, করোনা ভাইরাসে এগিয়ে পাকিস্তান আক্রান্ত 625 প্রায় ভারতের দ্বিগূণ সংখ্যক মানুষ আক্রান্ত হয়ে রয়েছে পাকিস্তানে। কি ভাবে মোকাবিলা করবে ইমরান খানের সরকার।

সারাবিশ্বে মহামারীর আকার ধারণ করেছে করোনা ভাইরাস। এই ভাইরাসের আতঙ্ক বিশ্বজুড়ে ক্রমাগত বেড়েই চলেছে।

তবে পাকিস্থানে আরো বড় আকারে এই ভাইরাস ভয়াবহ রূপ নিতে পারে বলে আশঙ্কা করছে সরকার। সেই কারণে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বিশ্বের ধনী দেশগুলোর কাছে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন। পাকিস্তানের পক্ষ থেকে যে সমস্ত ঋণ নেওয়া হয়েছিল সেগুলি মুকুব করা আবেদন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

অন্যান্য দেশগুলোর মতোই পাকিস্তানের কন্ঠে করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে সুর এই ভাইরাস মোকাবিলা করার কোন সামর্থ্য বা তেমন কোন পরিকাঠামো নেই এই দেশের তাও তিনি স্বীকার করে নিয়েছেন। এর আগে ভারত এবং পাকিস্তানের বিভিন্ন সীমান্ত বন্ধ রাখা হয়েছে। এছাড়া ইরান এবং আফগানিস্তানের সাথে পাকিস্তানের সীমান্ত বন্ধ করে রাখা হয়েছে। সারাবিশ্বে বর্তমানে যেভাবে ছড়িয়ে পড়েছে এই মারণ রোগ তার থেকে এই ছাড় পায়নি প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তান।

সকলে সর্তক থাকুন। আতঙ্কিত হবেন। আমাদের সর্তকতাই এই রোগের হাত থেকে আমাদের রক্ষা করতে পারে। তাই আতঙ্কিত হওয়ার থেকে আমাদের সর্তক থাকতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
Translate »