বাঁকুড়ায় ভূমিকম্প। পর পর দু বার কেঁপে উঠলো বাঁকুড়া

করোনা ভাইরাসের পাশাপাশি ভূমিকম্পের আতঙ্ক বাঁকুড়ায়।

বাঁকুড়ায় ভূমিকম্প ঃ লকডাউন রাজ্য দেশ শহর-গ্রাম প্রতিটি জায়গার মানুষ ঘরে নিজেদেরকে বন্দী করে রেখেছে। বাদ যায়নি বাঁকুড়াও, তবে এই আতঙ্কের মধ্যে পরপর দুবার কেঁপে উঠল বাঁকুড়ার মাটি।

আরো খবর আপাতত বিপদ মুক্ত কলকাতা NRS Hospital

বাঁকুড়ায় ভূমিকম্প

পর পর দু বার কেঁপে উঠলো বাঁকুড়ার মাটি

বুধবার সকালে প্রথমে 11:19 এ কম্পন অনুভূত হয় বাকুড়ায় তার কিছুক্ষণের মধ্যেই ফের 11:24 এ আবার কেঁপে ওঠে বাঁকুড়া।

বাঁকুড়ার আবহাওয়া দপ্তর থেকে জানানো হয়েছে, প্রথমবারে কম্পনের মাত্রা ছিল 5.4 এবং তা দুই মিনিট স্থায়ী ছিল। এবং এই কোম্পানির উৎস স্থল ছিল লাক্ষাদ্বীপ।

দ্বিতীয়বার আবার কম্পন অনুভূত হয়। আবার দু সেকেন্ডের মত স্থায়ী হয় সেই কম্পন। দুর্গাপুর থেকে মাত্র 21 কিলোমিটার পশ্চিমে ছিল এপিসেন্টার। প্রথমবার কম্পন অনুভূত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বাড়িতে থাকা মানুষের রাস্তায় বেরিয়ে পড়েন। আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে তাদের নিজেদের মধ্যে।

অন্য খবর Vastu Tips For Your Home

তবে এই মুহূর্তে ক্ষয়ক্ষতির কোনো খবর পাওয়া যায়নি। অন্যদিকে বাঁকুড়া শুশুনিয়া জঙ্গলে আগুন। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে গত তিন তারিখ থেকে আগুনের শিখা দেখা দিয়েছিল 4 তারিখে গ্রামবাসীরা নিজেদের চেষ্টায় আগুন নেভায়।

তারপরে আবার বুধবার সকাল থেকে ওই অঞ্চলে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলে ওঠে আগুন। পাহাড় জুড়ে শুকনো পাতা থাকার ফলে আগুন চারদিকে ছড়িয়ে ফলে। দমকলের আপ্রান চেষ্টায় আগুন নেভানোর কাজ চলছে। তবে এখনো পর্যন্ত যা খবর সে জায়গায় দাঁড়িয়ে সম্পূর্ণ রূপে জঙ্গলের আগুন নেভানো সম্ভব হয়নি।

অন্যদিকে, NRS Hospital 39 জন চিকিৎসক এবং 16 জন নার্স যারা কোয়ারেন্টাইন ছিলেন তারা আপাতত বিপদ থেকে মুক্ত তাদের থেকে সংগৃহীত লালারসের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে অতএব তারা বর্তমানে কোন আক্রান্ত নয় এখন 14 দিনের মধ্যে আবার আরেকবার নমুনা পরীক্ষা করে দেখা হবে।

তবে করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট নিলেও এই মুহূর্তে তারা কেউই কাজে যোগ দিচ্ছেন না। এনআরএস হাসপাতালে মোট 79 জন যাদের মধ্যে রয়েছেন চিকিৎসক, নার্স এবং অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মীরা। তাদের সকলকে কোয়ারান্টিনে পাঠানো হয়েছিল।

সকলে সর্তক থাকুন। করোনা নিয়ে অযথা আতঙ্কিত হবেন না। একমাত্র সর্তকতাই হল করোনা ভাইরাসের মোকাবিলার প্রথম হাতিয়ার। লকডাউন মেনে চলুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
Translate »