মানসিক অবসাদ ও জ্যোতিষ শাস্ত্র। চলে গেলেন প্রিয় অভিনেতা

মানসিক অবসাদ নিয়ে কি বলছে জ্যোতিষ শাস্ত্র। ব্যাখ্যা করেছেন জ্যোতিষী শ্রী অনিকেত। মানসিক অবসাদ প্রসঙ্গে জ্যোতিষ শাস্ত্র নির্ভর বিভিন্ন বিষয় এবং মানসিক অবসাদ থেকে মুক্তি কি ভাবে পাওয়া যাবে তা নিয়ে একটি বিস্তর আলোচনা আপনাদের জন্য 

ভারতীয় চলচ্চিত্র জগতে আরো একটি নক্ষত্র পতন হলো,মাত্র চৌত্রিশ বছর বয়সে চলে গেলেন অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপূত|অত্যান্ত মর্মান্তিক ঘটনা|আত্মহত্যা করলেন তিনি, কারন মানসিক অবসাদ|এই মুহর্তে টেলিভিশন, প্রিন্ট মিডিয়া ও সোশ্যাল মিডিয়াতে জোর আলোচনা হচ্ছে এই মানসিক অবসাদ নিয়ে, বিশেষজ্ঞ রা তাদের মতামত দিচ্ছেন নিজের মতো করে, চলছে চুল চেরা বিশ্লেষণ|আমি একজন পেশাদার জ্যোতিষী হয়ে বিষয় টাকে জ্যোতিষের দৃষ্টিভঙ্গী থেকে দেখার চেষ্টা করবো|তবে সবার আগে জানতে হবে কি এই মানসিক অবসাদ? কেনই বা হয় অবসাদ? কি ভাবেই বা মানসিক অবসাদ থেকে বেড়িয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসা যায়? জ্যোতিষশাস্ত্র কি ভূমিকা পালন করতে পারে এক্ষেত্রে?|খুঁজবো এই সব প্রশ্নের উত্তর নিজের মতো করে|

আধ্যাত্মিক ভাবে মানসিক অবসাদ এমন একটা মানসিক অবস্থা যেখানে সদর্থক কোন কিছু থাকেনা । সব নঞর্থক হয়ে যায় । কিচ্ছু নেই , কিচ্ছু হবে না ,কিচ্ছু হচ্ছে না আর কোন আশা নেই , সব খারাপ হবে এই জাতিও চিন্তা ভাবনা । চিকিৎসা বিজ্ঞান বলছে কোন দুশ্চিন্তা যদি উপযুক্ত কারন ছারাই কাউকে গ্রাস করে ফেলে এবং অবসাদ যদি দু সপ্তার বেশি স্থায়ী হয় তাহলে তাকে ডিপ্রেশন বলা হয়|সঠিক সময়ে চিকিৎসা না হলে,সমস্যার সমাধান না হলে তার ফল অতি মারাত্মক হতে পারে । এই জটিল মানসিক অবস্থা থেকে যত দ্রুত সম্ভব বেরিয়ে আসা উচিৎ না হলে ঘোর বিপদ |আমার মতে যা শুধু আমার মত নয় অনেক পণ্ডিত ই তাই মনে করেন যে ডিপ্রেশন যার প্রধান ধারক ও বাহক হচ্ছে নেগেটিভ থিঙ্কিং তা মুলত শেল্ফ ক্রিয়েটেড অর্থাৎ আমরা নিজেরাই এটা সৃষ্টি করি এবং এর প্রধান কারন হচ্ছে অতিরিক্ত প্রত্যাসা আর প্রত্যাশা না মিটলেই অবসাদ, তারপর নেশা,অপরাধ প্রবনতা এবং আত্যহত্যা তো আছেই|

মানসিক অবসাদ ও জ্যোতিষ শাস্ত্র। চলে গেলেন প্রিয় অভিনেতা

ওভার থিংকিং ও মানসিক অবসাদের একটা বড়ো কারন চিন্তা করা খারাপ খারাপ না । এমনকি ওভার থিঙ্কিং ও খারাপ না যদি সেই চিন্তা সদর্থক হয় । চিন্তায় ডুবে না থাকলে কি রবীন্দ্রনাথ এত লিখতে পারতেন বা চিন্তা ছাড়া কি নিউটন মহাকর্ষের সুত্র আবিস্কার করতে পারতেন । সমস্যা টা অন্য যায়গায় চিন্তা যদি প্রবলেম কেন্দ্রিক হয় তখন গণ্ডগোল যতক্ষণ চিন্তা সমাধান কেন্দ্রিক ততক্ষন ঠিক আছে |

সমস্যা থাকলে তার সমাধানের পথ ও থাকবে, জীবনের অর্ধেক সমস্যা তখনি শেষ হয়ে যাবে যখন আমরা সদর্থক ভাবে ভাবতে শুরু করবো। আর এই ভাবনা তখনি শুরু হবে যখন অবাস্তব প্রত্যাসার জাল কেটে বাইরে বেরিয়ে আসবো । চাপ মুক্ত হয়ে বাঁচতে শিখতে হবে । খোলা হাওয়ায় নিঃশ্বাস নিতে হবে । নিজেকে সময় দিতে হবে । মনে রাখতে হবে happyness just isn’t a vacation spot it’s a journry সুখ সুখ বা শান্তি কোন নির্দিষ্ট লক্ষ নয় তা একটা দীর্ঘ যাত্রা । প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠে ভাবতে হবে কাল যা নিয়ে ঘুমাতে গেছিলাম আজ উঠে তার সব টুকু দেখতে পাচ্ছি এ এক পরম সৌভাগ্য |সত্য আর মিথ্যা যেমন একসাথে থাকতে পারেনা । আলো আর অন্ধকার যেমন একসাথে থাকতে পারেনা তেমনি সদর্থক চিন্তা আর মানসিক অবসাদ পাশাপাশি থাকতে পারেনা ।constructive considering শুরু হলেই মানসিক অবসাদ আপনি থেকেই পিছু হটতে শুরু করে|এই পসিটিভ থিংকিং এ ফিরে আসার অনেক রাস্তা আছে, সেটা যোগ বা মেডিটেশন হতে পারে, কাউন্সেলিং হতে পারে এমনকি যথাযথ মেডিকেশন ও হতে পারে|

আরো পড়ুন নিজের গ্রহদোষ নিজেই কাটান

এবার আসি জ্যোতিষ কেন্দ্রিক ব্যাখ্যায়,সনাতন জ্যোতিষ শাস্ত্রে মনের কারকগ্রহ হচ্ছে চন্দ্র কারুর জন্ম ছকে বা গোচরে চন্দ্র যদি অশুভ গ্রহের দ্বারা প্রভাবিত হয় তবে মানসিক অবসাদ আসতে পারে|এছাড়াও জন্মছকে গ্রহন দোষ বা কেমদ্রুম যোগের মতো কিছু বিশেষ গ্রহগত সংযোগ তৈরি হলে জাতক বা জাতিকা মানসিক অবসাদের স্বীকার হতে পারে|শুধু তাই নয় তার পঞ্চম ভাব সহ আরো কয়েকটি বিষয়ও বিচার করে দেখা যেতে পারে|সমস্যা যদি জ্যোতিষ সংক্রান্ত হয় সঠিক জ্যোতিষ পরামর্শ ও প্রতিকারের মাধ্যমে সেই সমাধান ও সম্ভব,এক্ষেত্রে একজন অভিজ্ঞ ও দক্ষ জ্যোতিষীর পরামর্শ বাঞ্চনীয়|মনে আস্থা ও শ্রদ্ধা রেখে এগিয়ে গেলে জয় আসবেই|ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন| ধন্যবাদ|

আরো পড়ুন Astrological Tips for Financial Problem এগারোটি অব্যর্থ টোটকা

জ্যোতিষী শ্রী অনিকেত যোগাযোগ ঃ 8250012429 / 8537978455

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
Translate »