লকডাউনে ভবানীপুরে সাত দিন ধরে ভাইয়ের পচা গলা দেহ আগলে দিদি

ভবানীপুরে সাতদিন ধরে ভাইয়ের পচা গলা দেহ আগলে দিদি। কি করে মৃত্যু হল শান্তনু দের। খুন না কি সাধারণ মৃত্যু ! দিদি কেন দেহ আগলে ছিল।

ভবানীপুরে মৃতদেহ ঃ এবার ভবানীপুরে রবিনসন স্ট্রিটের কান্ডের ছায়া। লকডাউন চলাকালীন খাবার বিলি করার সময় ফ্লাট থেকে উদ্ধার 49 বছরের এক ব্যক্তির পচা গলা মৃতদেহ। 54 বছরে দিদির বিরুদ্ধে ভাইয়ের মৃতদেহ সাতদিন ধরে আগলে রাখার অভিযোগ। লকডাউন চলাকালীন গতকাল কলকাতা পুরসভার সত্তর নম্বর ওয়ার্ডে খাবার বিলি করছিলেন স্থানীয় কাউন্সিলর।

স্থানীয় সূত্রে খবর, এলাকারই একটি ফ্ল্যাটে ভাই সান্তনুদের সঙ্গে থাকতেন দিদি মহাশ্বেতা দে। তারা কেউই রোজগার করতেন না। অভিযোগ খাবার নিলেও ছবি তুলতে দিতে চাননি দিদি মহেশ্বেতা। সেই সময় ফ্লাট থেকে পচা গন্ধ বের হওয়ায় ঘরের ভেতরে ঢোকেন কাউন্সিলর ও তার সঙ্গীরা। খাটের উপর থেকে উদ্ধার হয় মহাশ্বেতা দেবীর ভাইয়ের পচা গলা মৃতদেহ।

আরো খবর পড়ুন এই লিঙ্কটি ওপেন করে করোনা মুক্ত দেশ গুলি কি কি জানেন ? যেখানে পৌছায়নি করোনা সংক্রামন

কিভাবে মৃত্যু ক্ষতিয়ে দেখছে পুলিশ। মহাশ্বেতা দেবী মানসিক ভারসাম্যহীন কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কলকাতা পুরসভার ভবানীপুরে 70 নম্বর ওয়ার্ডের অন্তর্গত মাধব চ্যাটার্জি লেন।

গতকাল ভবানীপুরে 70 নম্বর ওর্য়াডের কাউন্সিলর লকডাউন প্রক্রিয়া চলাকালীন বিভিন্ন জায়গায় খাদ্য বিতরণ করছিলেন সেই -খাদ্য বিতরণ করতে করতে আসেন ঐ ওর্য়াডের 1/A মাধব চ্যাটার্জি লেনের বাড়িতে।

প্রথমেই মহাশ্বেতা দেবীর সাথে তাদের প্রথম কথা হয় এবং তাদের কথাবার্তা যেটা উঠে আসে যে খাদ্য দেওয়ার পর তিনি তার ভাইয়ের খোঁজ করেন কাউন্কিসিলর। কিন্তু প্রথম ক্ষেত্রে তিনি পুরো বিষয়টি স্পষ্ট করে বলতে চাননি। আর বাড়িতে বিশেষ করে একটি ঘর থেকে পচা গন্ধ বের হতে থাকে। তাদের সন্দেহ হয় এবং তারা ঘরের ভেতরে ঢোকেন।

ঘরে ঢোকার পর যেটা দেখা যায় যে, এই বাড়ি এই যে দোতালার ঐ ঘরে ( যে ঘর থেকে পচা গন্ধ আসছিল ) খাটে মহাশ্বেতা দেবীর ভাই সান্তনু দের দেহ পড়ে রয়েছে। একেবারে কঙ্কালসার দেহ। মহাশ্বেতা দেবী অর্থাৎ কিনা তার দিদি যেটা বলছেন যে সাত দিন আগে তার ভাইয়ের মৃত্যু হয়েছে। ঠিক কতদিন মৃত্যু হয়েছে সেই বিষয়টা পুলিশ খতিয়ে দেখছে। ইতিমধ্যেই ময়না তদন্তের জন্য দেহ পাঠানো হয়েছে।

গোটা ঘটনার তদন্ত প্রক্রিয়া শুরু করেছে ভবানীপুর থানার পুলিশ এবং তারা খতিয়ে দেখছে ঠিক কি ঘটনা ঘটেছিল। কিভাবে এই ঘটনা ঘটলো বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। প্রাথমিক ভাবে যেটা শান্তনুদের দিদি মহাশ্বেতা দেবী কে বলছেন যে তিনি ভেবেছিলেন তার ভাই বেঁচে উঠতে পারে সেই আশাতেই কিন্তু তিনি কাউকে গোটা বিষয়টি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
Translate »