অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ বন্ধ করার আবেদন করল বাংলাদেশ

অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ বন্ধ করার পরামর্শ দিয়েছেন বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী। বিস্তারিত পড়ুন

অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ ঃ এই বছরই ভারতে অয্যোধ্যায় ভগবান শ্রী রামের মন্দির নির্মাণ শুরু হতে চলেছে। আগামী 5ই আগস্ট 2020 সালে অযোধ্যায় মন্দিরের ভিত্তি স্থাপন করবেন ভারতের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী। আর এদিকে বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন রবিবার এই বিষয়ে একটি বিশেষ মন্তব্য করেন।

ভারতে অবশেষে অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণের কাজ শুরু হতে চলেছে। এই শুভ কর্মসূচী উপলক্ষে আগামী 5ই আগস্ট মন্দিরের ভিত্তি স্থাপন করতে চলেছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী আর এই সময় গত রবিবার বাংলাদেশের বিদেশ মন্ত্রী এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বলেন, ভারতের এই কাজ থেকে বিরত থাকা উচিত।

আপনারাই বলুন, এটা তো ভারতের নিজেদের বিষয়। যা ভারতের সুপ্রিম কোর্ট রায় দিয়েছে অযোধ্যায় রামমন্দিরের পক্ষে। এতো বছর পরে 2021 সালে এই শুভ মুহুর্তে বাংলাদেশেই এরকম মন্তব্য যথেষ্ট বিরক্তির কারন। করোনা পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের অবস্থা খুনই সঙ্কট জনক সেই সময় নিজেদের দেশের কথা না ভেবে অন্য প্রতিবেশীদেশ তার দেশের অভ্যন্তরে কি করছে তা নিয়ে বাংলাদেশের মাথা ঘামানো কত উচিত ! এই নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে বিভিন্ন মহলে।

অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ বন্ধ করার আবেদন করল বাংলাদেশ

অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ নিয়ে কি বললেন বাংলাদেশের বিদেশ মন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন ?

অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ ও ভিত্তি স্থাপনের বিষয় বাংলাদেশের বিদেশ মন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন বলেছেন, এই ধরনের কাজ থেকে ভারতকে বিরত থাকতে। এমনকি তিনি এও বলেন এর ফলে প্রতিবেশীদেশের সাথে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক সম্পর্ক্য নষ্ট হতে পারে।

বিজেপি তে আছি আর বিজেপি তেই থাকবো। জল্পনার অবসান ঘটালেন মুকুল রায়

অযথা বাংলাদেশের এই হেন নাক গলানো কে মোটের ভারতবাসীরা ভালো চোখে দেখছে না।

বাংলাদেশের বিদেশ মন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন আরো বলেন, প্রতিবেশী দেশ ভারতের এমন কোন কাজ করাই উচিত না যেখানে, দুটি দেশের মধ্যে সম্পর্ক খারাপ হয়ে যেতে পারে। তাই যে নির্মাণের ফলে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে সম্পর্কে ফাটল ধরে সেই ধরনের কাজ কর্ম করা থেকে দূরে থাকার পরামর্শ প্রদান করেছেন তিনি।

সোজা বাংলায় বলছি মমতার নতুন কর্মসূচী – লিঙ্কটি ওপেন করে বিস্তারিত পড়ুন

The Hindu সংবাদপত্র অনুযায়ী, আব্দুল মোমেন জানিয়েছেন যে ” আমরা আমদের পারস্পরিক সম্পর্ককে খারাপ করতে চাই না, যদিও আমরা এটাও অনুরোধ করছি যে, ভারত এরকম কোন গতিবিধি থেকে দূরে থাকুক, যেটা আমাদের দুই দেশের মধ্যে সম্পর্ক খারাপ করতে পারে। দুই দেশকেই এটা মাথায় রাখতে হবে যে, কোন কাজের জন্য যাতে দুই দেশের মধুর সম্পর্ক খারাপ না হয়।”
অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ বন্ধ করার আবেদন করল বাংলাদেশ

মোমেন আরো বলেন, দুই দেশেরই যৌথ ভাবে দায়িত্ব নিতে হবে যে, সমাজের সমস্ত সম্প্রদায়ের মানুষের মধ্যে সুসম্পর্ককে বাড়ানো আর এটা সুনিশ্চিত করতে হবে যে সেই সম্পর্ক যেন খারাপ না হয়। আরেকদিকে মোমেন গত সপ্তাহে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের মধ্যে টেলিফোনে হওয়া কথাবার্তার কথা অস্বীকার করেছেন।

কি ভাবে আর্থিক উন্নতি হবে জানতে এই লিঙ্কটি ওপেন করুন – সৌভাগ্যের বন্ধু জ্যোতিষ পত্রিকা পড়ুন বিনামূল্যে

অবাক লাগছে, তার এই মন্তব্য শুনে। কোনো দেশ তার নিজের দেশের অভ্যন্তরে কি করবে বা কি করবে না সেটা দেশের আইন তথা রাজনৈতিক ইত্যাদি পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে। এতে অন্য দেশের কোনো মন্তব্য কি ভাবে করা উচিত এই টাই এখন প্রশ্ন। অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ প্রসঙ্গে সুপ্রিম কোর্ট তার রায় প্রদান করেছে। এটি বিচারাধীন সিদ্ধান্ত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
Translate »