ত্বকের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে রাইস ওয়াটার কি ভাবে ব্যবহার করবেন ?

আপনার ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা থেকে খুব সহজেই মুক্তি পেতে রাইস ওয়াটারের ব্যবহার জেনে নিন

ত্বকের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে রাইস ওয়াটারের ব্যবহার – চাল যে শুধুমাত্র খিদে মেটাতে ব্যবহার হয় না , এটি রূপচর্চাতেও ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। রূপচর্চায় চালের গুঁড়ো ব্যবহারের কথা জানলেও, কিন্তু চুল ও ত্বকের যত্নে রাইস ওয়াটার ব্যবহারের কথা হয়তো অনেকের অজানা বিভিন্ন চর্মরোগ, অকাল বার্ধক্য এবং ত্বকের নানান সমস্যার সমাধান করতে, চমৎকার কাজ দেয় এই রাইস ওয়াটার। রাইস ওয়াটার সম্পূর্ণভাবে কেমিক্যালমুক্ত হওয়ার জন্ ত্বককে কোমল এবং মসৃণ ও উজ্জ্বল করে তোলে। তাহলে দেখে নিন এই আর্টিকেল থেকে , রাইস ওয়াটারের উপকারিতা কী কী এবং রুপচর্চার জন্য কীভাবে এই ওয়াটার তৈরি করবেন– Bengali Health Tips

শরীরে ফ্যাট কমানোর উপায় জেনে নিন মেথির চমৎকারী টোটকা

বাড়িতে কীভাবে রাইস ওয়াটার তৈরি করবেন?

বাড়িতে রাইস ওয়াটার তৈরীর দুটি সহজ উপায় –

ত্বকের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে রাইস ওয়াটার কি ভাবে ব্যবহার করবেন ?

১) একটি পাত্রে, এক কাপ চাল এবং তাতে দ্বিগুণ পরিমান জল দিয়ে, প্রায় আধঘণ্টা ভিজিয়ে রাখুন। তারপর সেই জল, ছেঁকে নিয়ে বোতলে রাখুন ।

২) একটি কুকারে, এক কাপ চাল এবং তার দ্বিগুণ জল দিয়ে অর্ধেক সিদ্ধ করুন। সেই আধা সিদ্ধ চালের জল একটি বোতলে ছেঁকে নিন।

Bengali Health Tips of Rice Water 

১) রাইস ওয়াটার তৈরির ক্ষেত্রে অর্গ্যানিক চাল ব্যবহার করবেন।
২) সাদা চালের ব্যবহার করবেন।

৩) একটি জারে রাইস ওয়াটার স্টোর করে ঘরের সাধারণ তাপমাত্রাতে ও শুষ্ক জায়গায় এটি রাখবেন।

৪) পাঁচ দিন হয়ে গেলে, পুরানো রাইস ওয়াটার ফেলে দিয়ে আবার নতুন করে বানিয়ে ব্যবহার করবেন।

৫) রাইস ওয়াটার পুরনো হলে ঘন হতে থাকে ,তাই যতদিন যাবে, প্রয়োজনমতো মতো জল মিশিয়ে, তারপর ব্যবহার করবেন।

৬) ব্যবহারের আগে চাল ভাল করে ধুয়ে নিন।

ত্বকের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে রাইস ওয়াটার কি ভাবে ব্যবহার করবেন ?


রাইস ওয়াটারের উপকারিতা

১) সেনসিটিভ স্কিন, ব্রণ-পিম্পলের সমস্যা দূর করে বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, প্রদাহ, ব়্যাশ এবং ডার্মাটাইটিসের মতো বিভিন্ন ত্বকের সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে, দিনে দু’বেলা রাইস ওয়াটার দিয়ে স্নান করলে ভালো ফল পাওয়া যায় । এমনকি সেনসিটিভ স্কিনের জন্যও, রাইস ওয়াটার ভীষণ কার্যকরী। এটি ব্রণর সমস্যাও কমিয়ে দেয়।

ত্বকের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে রাইস ওয়াটার কি ভাবে ব্যবহার করবেন ?

২) সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে, ত্বককে সুরক্ষিত রাখে বলে রাইস ওয়াটারকে প্রাকৃতিক সানস্ক্রিন বলা হয়। সানবার্ন সারাতেও এটি ব্যবহার করতে পারেন।

৩) রাইস ওয়াটারে ভিটামিন এ, ভিটামিন সি এবং ভিটামিন ই, ফেরুলিক অ্যাসিড, ফ্ল্যাভনয়েড এবং ফেনোলিক কম্পাউন্ড বর্তমান। এগুলি ত্বকের ক্রিয়াকলাপের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। এবং এটি বার্ধক্য বিরোধী।

আর্থিক উন্নতি তে বাধা কাটানোর সহজ উপায় ঘরোয়া টোটকা

৪) রাইস ওয়াটারের অন্যতম প্রধান কাজ হল ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করা। ফারমেন্টেড রাইস ওয়াটারে তুলো ভিজিয়ে ত্বকে ম্যাসাজ করলে, দুর্দান্ত ফল পাবেন! সানস্পট, পিগমেন্টেশন, ফ্রিকেলস, হালকা করতেও খুব কার্যকরী। ত্বকের কমপ্লেকশন ভালো করে।

৫) অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যুক্ত রাইস ওয়াটার ত্বকের ক্যান্সার থেকে রক্ষা করে।

৬) রাইস ওয়াটার দেহের ত্বকের জন্যও খুব উপকারি। প্রত্যেকদিন স্নানের জলে, দুই কাপ রাইস ওয়াটার মিশিয়ে স্নান করুন। চমৎকার ফল পাবেন। চাইলে ল্যাভেন্ডার বা যেকোনো এসেনশিয়াল অয়েলের কয়েক ফোঁটা, ওই স্নানের জলে মিশিয়ে নেবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
Translate »