কোভিশিল্ড আর কোভ্যাক্সিনের পার্থক্য করোনা রোধে কোনটি সেরা জেনে নিন

কোভিশিল্ড আর কোভ্যাক্সিনের মধ্যে কোন ভ্যাকসিনটা বেশী নিরাপদ জেনে নিন

কোভিশিল্ড আর কোভ্যাক্সিনের পার্থক্য – করোনা মহামারী রোধে সারাদেশজুড়ে চলছে ব্যাপক টিকাকরণ। ভারতের বাজারে এই মুহূর্তে পাওয়া যাচ্ছে দু’টি ভ্যাকসিন – কোভিশিল্ড আর কোভ্যাক্সিন। তবে এই দুই টিকার মধ্যে কোনটা নিলে সবচেয়ে ভাল, কোনটার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বেশি, এনিয়ে মানুষের মনে অনেক প্রশ্ন । আজ এই আর্টিকেলে মাধ্যমে জেনে নিন।

কোভিড ভ্যাকসিন কারা নিতে পারবেন এবং কারা নয় জেনে নিন বিস্তারিত

কোভিশিল্ড ও কোভ্যাক্সিন-এর মধ্যে কতটা পার্থক্য

 কোভিশিল্ড আর কোভ্যাক্সিনের পার্থক্য করোনা রোধে কোনটি সেরা জেনে নিন

কোভিশিল্ড আর কোভ্যাক্সিনের পার্থক্য এই যে কোভ্যাক্সিন সম্পূর্ণ দেশীয় টিকা। ভারত বায়োটেক এবং আইসিএমআর যৌথভাবে মিলে তৈরি করেছে কোভ্যাক্সিন। সনাতনী পদ্ধতিতে তৈরি এই টিকা।

কোভ্যাক্সিন তৈরিতে মৃত ভাইরাসকে কাজে লাগিয়ে ভ্যাকসিনে উপস্থিত ইমিউন সেলস করোনার বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি তৈরি করে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে শক্তিশালী করে তোলে । কোভ্যাক্সিনের ট্রায়াল হয়েছিল ভারতীয়দের উপরেই।

আর্থিক উন্নতি তে বাধা কাটানোর সহজ উপায় ঘরোয়া টোটকা

কোভিশিল্ড আর কোভ্যাক্সিনের পার্থক্য – আর এই কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনটি বিদেশি সংস্থার সাথে জোট হয়ে তৈরি করা হয়েছে। অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিনটির ভারতীয় সংস্করণ কোভিশিল্ড, যা তৈরি করা হচ্ছে পুণের সিরাম ইনস্টিটিউটে।

 কোভিশিল্ড আর কোভ্যাক্সিনের পার্থক্য করোনা রোধে কোনটি সেরা জেনে নিন

কোভিশিল্ড তৈরি করা হচ্ছে শিম্পাঞ্জির শরীর থেকে নেওয়া এক ধরনের ভাইরাসের স্পাইক প্রোটিন থেকে। যেটা করোনা ভাইরাসের মতো বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে। কোভিশিল্ডের ট্রায়াল হয়েছে ব্রাজিল, আফ্রিকা এবং দক্ষিণ আমেরিকার অধিবাসীদের উপরে।

কীভাবে কাজ করে এই কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন ?

কোভিশিল্ডের একটি ডোজ নিলে শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হওয়া শুরু হয়ে যায় যা শরীরকে কোভিড থেকে রক্ষা করতে সহায়তা করে। এই ভ্যাকসিন ৭০ শতাংশ কার্যকর। কিছু দিনের ব্যবধানের পরে পুরো ডোজ নেওয়ার পরে এই ভ্যাকসিনটি ৯০ শতাংশ পর্যন্ত কার্যকর করোনার বিরুদ্ধে ।

 কোভিশিল্ড আর কোভ্যাক্সিনের পার্থক্য করোনা রোধে কোনটি সেরা জেনে নিন

কোভ্যাক্সিন কীভাবে কাজ করে?

কোভ্যাক্সিন শরীরের করোনার ভাইরাসের বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি প্রস্তুত করে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরিতে সহায়তা করে । ভ্যাকসিনটি করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে ১০০ শতাংশ কার্যকর। বিজ্ঞানীদের গবেষণায় করোনার সঙ্গে লড়াইয়ের ক্ষেত্রে এই দুই প্রতিষেধকই যথেষ্ট কার্যকরী বলে প্রমাণিত ।

তবে চিকিৎসকদের বক্তব্য

ভ্যাকসিন পুরোপুরি ভাইরাসের অস্তিত্ব মুছে দিতে অক্ষম , তবে তার প্রভাব অনেকটাই কমিয়ে দেবে। এখনো অবধি ভারতে এই দুই ভ্যাকসিনের কোনোরকম মারাত্বক সাইড এফেক্টের কথা পর্যন্ত শোনা যায়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
Translate »