ইমামদের পরে এবার পুরোহিত ভাতা দেওয়ার ঘোষনা মমতার

রাজ্যে ইমামদের পর এবার পুরোহিত ভাতা, ঘোষণা মমতার

পুরোহিত ভাতা নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন সঞ্জয় সাহা লিখেছেন পড়ুন বিস্তারিত

পুজোর মরশুমে রাজ্যের পুরোহিতের জন্য নতুন সওগাত নিয়ে হাজির পশ্চিমবঙ্গ সরকার। ইমামদের পাশাপাশি এবার থেকে রাজ্যের নির্দিষ্ট সংখ্যক গরীব পুরোহিতরাও পাবেন সরকারি ভাতা ,ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পুজোর মাস থেকেই এই সরকারি আর্থিক সাহায্য বাংলার ৮০০০ পুরোহিতের কাছে পৌঁছে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সরকারি তরফ থেকে।

ইমামদের পরে এবার পুরোহিত ভাতা দেওয়ার ঘোষনা মমতার

গত ৯ আগস্ট কলকাতার রানি রাসমণি অ্যাভিনিউয়ে পুরোহিত সমাবেশে উপস্থিত হয়ে রাজ্যের অনগ্রসর শ্রেণি কল্যাণ মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় পুরোহিতের জন্য মাসিক ভাতা থেকে শুরু করে বাসস্থান এবং স্বাস্থ্যবিমার ব্যবস্থা করা হবে বলে আশ্বাস দেন। এই সমাবেশের আয়োজন করা হয়েছিল পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সনাতন ব্রাহ্মণ ট্রাস্ট এর পক্ষ থেকে।

Monalisa কালো বিকিনিতে স্বামীর সাথে জলকেলিতে মগ্ন

সমাবেশে মন্ত্রীর সামনেই ট্রাস্টের পক্ষ থেকে একাধিক দাবি করা হয়, যার মধ্যে অন্যতম ছিল রাজ্যের ব্রাহ্মণদের মাসিক ভাতা প্রদান, স্বাস্থ্য বীমার ব্যবস্থা, রাজ্যের জেলায় জেলায় পঞ্চায়েত সমিতি ও পৌর এলাকার গুলিতে ব্রাহ্মণ সন্তানদের জন্য একটি টোল নির্মাণ, গৃহহীন গরীব ব্রাহ্মণদের জন্য সরকারি সহযোগিতায় বাসস্থান প্রধান, রাজ্যে সংস্কৃত কলেজের বৃদ্ধি, বিদ্যালয়গুলিতে পঞ্চম শ্রেণি থেকে সংস্কৃতের অন্তর্ভুক্তি প্রভৃতি।

ইমামদের পরে এবার পুরোহিত ভাতা দেওয়ার ঘোষনা মমতার

এমতাবস্তায় মুখ্যমন্ত্রীর এদিনের ঘোষণা ট্রাস্টের দাবি গুলির একাংশকে সীলমোহর দিল সরকারের পক্ষ থেকে।

প্রাথমিকভাবে ৮০০০ জন পুরোহিতদের একটি তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে যাদেরকে পুজোর মাস থেকেই মাসিক ১০০০ টাকা করে ভাতার বন্দোবস্ত করা হবে। এছাড়া যে সকল পুরোহিতদের নিজস্ব ঘর নেই তাদের বাংলা আবাস যোজনার মাধ্যমে বাড়িও তৈরি করে দেওয়া হবে ঘোষণা করেছেন তিনি।

সোমবার নবান্নের সাংবাদিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী জানান, “সনাতন ধর্মের ব্রাক্ষণরা দীর্ঘদিন ধরে পুজো করে আসছেন। দীর্ঘদিন ধরে তাঁরা মন্দিরে মন্দিরে পুজো করেন। কিন্তু কোনওরকম সাহায্য তারা পাননি। তাদের (পুরোহিতদের) মধ্যে একটি শ্রেণি আছে, যারা খুব গরিব।

ইমামদের পরে এবার পুরোহিত ভাতা দেওয়ার ঘোষনা মমতার

সবাই তো আর ভালো পুজো, ভালো বিয়ে বা ভালো কাজ করার বায়না তো পান না। অনেকে আছেন, খুব গরিব। খুবই গরিব। গ্রামেগঞ্জে মাসে একটা পুজো পেলেন হয়তো। তাতে তাঁদের চলবে না।’

যদিও মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণার মধ্যে তার রাজনৈতিক স্বার্থের গন্ধ খুঁজে পাচ্ছে বিরোধী শিবির। ইতিপূর্বে মমতা সরকারের ইমাম ভাতা দেওয়ার বিষয়কে কেন্দ্র করে তার ব্যাপক বিরোধিতা করা হয়েছিল বিরোধীদের পক্ষ থেকে।

আর এখন পুরোহিতের জন্য এ ধরনের ভাতার ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর তোষণমূলক রাজনীতিরই একটি উদাহরণ বলে মনে করছেন তারা।

পুরোহিত ভাতা উল্লেখ্য গত লোকসভা নির্বাচনে এ রাজ্যের সংখ্যালঘু ভোটের সিংহভাগ তৃণমূলের দখলে থাকলেও রাজ্যের হিন্দু ভোটের একটা বড় অংশ এখন বিজেপিমুখী। আর তাই এ রাজ্যের হিন্দু জনগণকে নিজের দিকে টানতেই সরকারের পক্ষ থেকে এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হলো বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষক মহল।

বিধানসভা নির্বাচনের আগে এভাবে মমতা হিন্দুত্বের তাস খেলে হিন্দু সম্প্রদায়ের সমর্থন আদায়ের চেষ্টা করছেন বলে মন্তব্য করেছেন বিরোধীরা। মুখ্যমন্ত্রী ধরনের প্রয়াস বিজেপির রাজনীতিকেই আরো শক্তিশালী করবে, বলেছেন বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী।

এভাবে বাংলার সমাজকে মুখ্যমন্ত্রী বিভাজিত করার চেষ্টা করছেন বলে মত প্রকাশ করেছেন তিনি। বিজেপি নেতা জয় প্রকাশ নারায়ন বাংলায় সাম্প্রদায়িক রাজনীতি শুরু করার জন্য মুখ্যমন্ত্রী কে দায়ী করেন। যেভাবে নিজের রাজনৈতিক স্বার্থে তিনি প্রথমে ইমাম ও মুয়াজ্জেমদের এবং এখন পুরোহিতের বিশেষ ভাতার ব্যবস্থা করলেন তাকে সাম্প্রদায়িক রাজনীতি মন্তব্য করেন তিনি।

ইমামদের পরে এবার পুরোহিত ভাতা দেওয়ার ঘোষনা মমতার

যদিও সরকারের পক্ষ থেকে মুখ্যমন্ত্রী তার এই ঘোষণার কারণ হিসেবে বাংলার গরিব ব্রাহ্মণদের শোচনীয় অবস্থাকেই গুরুত্ব দিয়েছেন। রাজ্যের পুরোহিত সংগঠনের পক্ষ থেকেও জানানো হয়েছে যে রাজ্যে নিয়মিত পুজো করা পুরোহিতের সংখ্যা ৩.৩ লাখেরও বেশি। আর এদের মধ্যে প্রায় ৩০০০০ পুরোহিতের বয়স ৬০ পেরিয়ে গেছে।

ফলে শারীরিক অবস্থার কারণে এদের অনেকেই নিয়মিত পুজো করতে পারেন না। সরকারের মতে এদের কথা মাথায় রেখেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের পুরোহিতদের সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে এবং প্রাথমিকভাবে ৮০০০ জন পুরোহিত কে মাসিক ১০০০ টাকা ভাতার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x
Translate »